মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উন্নতজাতের চারার বৈশিষ্ট্য

 

 

 

 

 

 

ধানের জাতবৈশিষ্ট্য
বি আর ১ (চান্দিনা)১৯৭০ সালে ধানের প্রজাতি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এর সময়কাল ১২০/১২৫ দিন। শস্যের আকৃতি মোটা ও ছোট। সাধারনত আউশ ও বোরো মৌসুমে হয়ে থাকে।প্রতি হেক্টরে ৪টন পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে।
বি আর ২ (মালা)১৯৭১ সালে প্রজাতি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এটি আউশ ও বোরো মৌসুমে হয়ে থাকে। এর সময়কাল ১২৫-১৬০ দিন। ৪ টন (প্রতি হেক্টরে) ফলন দিয়ে থাকে।
বি আর ৩ (বিপ্লব)১৯৭৩ সালে প্রজাতি হিসেবে স্বীকৃতি পায়। এটি আউশ, আমন ও বোরো তিন মৌসুমেই হয়ে থাকে। সময়কাল ১৩০ থেকে ১৭০ দিন। প্রতি হেক্টরে ৪ থেকে ৬.৫ টন পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে। এটি একটি উচ্চ ফলনশীল ধান ।
বি আর ৪ (ব্রিশাইল)১৯৭৫ সালে প্রজাতি হিসেবে স্বীকৃতি পায়। এর সময়কাল ১৪৫ দিন, প্রতি হেক্টরে গড়ে ৫ টন পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে। এটা সাধারনত আমন মৌসুমের ধান। এটি একটি আলোক সংবেদনশীল ধানের জাত।
বি আর৫ (দুলাভোগ)১৯৭৬ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ৫ টন পর্যন্ত (প্রতি হেক্টরে) এর গড় ফলন। সময়কাল ১৫০ দিন। আমন মৌসুমের ধান। স্থানীয় বাদশাভোগ ধান থেকে বিশুদ্ধ সারি বাছাইকরণ পদ্ধতিতে এই ধানের উদ্ভব। এই ধানের সুগন্ধ আছে বিধায় পোলাওরান্নার জন্য উপযোগী। আলোক সংবেদনশীল জাত। নাবীচাষের জন্য উপযুক্ত।
বি আর৬১৯৭৭ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ৪.৫-৫.৫ টন গড় উৎপাদন (প্রতি হেক্টরে)। সময়কাল ১১০ থেকে ১৪০ দিন পর্যন্ত। আউশ ও বোরো মৌসুমের ধান
বি আর ৭ (ব্রি বালাম)১৯৭৭ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ৪.৫-৫.৫ টন গড় উৎপাদন (প্রতি হেক্টরে)। সময়কাল ১২৫ থেকে ১৫৫ দিন পর্যন্ত। আউশ ও বোরো মৌসুমের ধান
বি আর ৮ (আশা)আউশ ও বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৭৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ১২৫ থেকে ১৬০ দিন এর সময়কাল। ৫ থেকে ৬ টন পর্যন্ত প্রতি হেক্টরে ফলন দিয়ে থাকে।
বি আর ৯ (সুফলা)আউশ ও বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৭৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ১২৫ থেকে ১৫৫ দিন এর সময়কাল। ৫ থেকে ৬ টন পর্যন্ত প্রতি হেক্টরে ফলন দিয়ে থাকে।
বি আর ১০ (প্রগতী)১৯৮০ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। আমন মৌসুমের ধান। ১৫০ দিন এর সময়কাল। প্রতি হেক্টরে গড়ে ৫.৫ টন ফলন দিয়ে থাকে। আন্ন্তর্জাতিক ফলন প্রতিযোগীতায় এই ধান শীর্ষস্থান অধিকার করে আছে। আলোকসংবেদনশীল জাত, হাটুপানিতেও রোপণ করা যায়।
বি আর ১১ (মুক্তা)বাংলাদেশের সর্বাধিক জনপ্রিয় জাত। ১৯৮০ সালে স্বীকৃতি পায়। আমন মৌসুমের ধান। ১৪৫ দিন এর সময়কাল। প্রতি হেক্টরে গড়ে ৫.৫ টন ফলন দিয়ে থাকে।
বি আর ১২ (ময়না)১৯৮৩ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। আউশ ও বোরো মৌসুমের ধান। ১৩০ থেকে ১৭০ দিন পর্যন্ত এর সময়কাল। ৪.৫ থেকে ৫.৫ টন (প্রতি হেক্টরে) এর ফলন হয়ে থাকে।
বি আর ১৪ (গাজী)আউশ ও বোরো মৌসুমে চাষের জন্য ১৯৮৩ সালে জাতীয় বীজ বোর্ড এর অনুমোদন লাভ করে থাকে। ১৫৫ থেকে ১৬০ দিন পর্যন্ত এর সময়কাল। ৫.৫ থেকে ৬.৫ টন পর্যন্ত (প্রতি হেক্টরে ) এর ফলন।
বি আর ১৫ (মোহিনী)আউশ ও বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৮৩ সালে চাষের জন্য অনুমোদন লাভ করে। ৫ থেকে ৫.৫ টন প্রতে হেক্টরে এর ফলন হয়ে থাকে। ১২৫ থেকে ১৬৫ দিন পর্যন্ত এর ব্যাপ্তিকাল।
বি আর ১৬ (শাহী বালাম)ইরি থেকে এ ধানের প্রবর্তন। এটি বোরো মৌসুমের ধান। এর জীবনকাল ১৫৫ থেকে ১৬০ দিন। ১৯৮৩ সালে চাষের জন্য অনুমোদন লাভ করে। ৫.৫ থেকে ৬.৫ টন পর্যন্ত (প্রতি হেক্টরে) এর ফলন হয়ে থাকে।
বি আর ১৭ (হাসি)প্রধানত হাওর এলাকার ধান। জীবনকাল ১৫৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৬ টন। বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৮৫ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ১৮ (শাহজালাল)প্রধানত হাওর এলাকার ধান। জীবনকাল ১৭০ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৬ টন। বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৮৫ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ১৯ (মঙ্গল)প্রধানত হাওর এলাকার ধান।জীবনকাল ১৭০ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৬ টন। বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৮৫ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ২০ (নিজামী)আউস মৌসুমের ধান। মাঝারি মোটা। জীবনকাল ১১৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৩.৫ টন। ১৯৮৬ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ২১ (নিয়ামত)আউস মৌসুমের ধান। মাঝারি মোটা। জীবনকাল ১১০ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৩ টন। ১৯৮৬ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ২২ (কিরণ)আমন মৌসুমের ধান। খাটো মোটা, সাদা। জীবনকাল ১৫০ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৫ টন। ১৯৮৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ২৩ (দিশারী)আমন মৌসুমের ধান। লম্বা চিকন, সাদা। জীবনকাল ১৫০ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৫.৫ টন। ১৯৮৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
বি আর ২৪ (রহমত)১৯৯২ সালে বীজ বোর্ড কর্তৃক অনুমোদন পায়। বৃষ্টিবহুল অঞ্চলের জন্যে উপযোগী। চাল লম্বা চিকন ও সাদা। ৩.৫ টন পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে। জাতটির জীবনকাল ১০৫ দিন। আউশ জাতের ধান।
বি আর ২৫ (নয়া পাজাম)এ ধানের কান্ড খুব মজবুত। বন্যায় বা বাতাসে হেলে পড়েনা। ১৯৯২ সালে এ জাতের উদ্ভব ঘটে। আমন মৌসুমের ধান। ফলন প্রতি হেক্টরে ৪.৫ টন। জীবনকাল ১৩৫ দিন।
বি আর ২৬ (শ্রাবণী)রোপা আমন মৌসুমের জন্য অনুমোদিত একটি জাত। ১৯৯২ সালে এ জাত স্বীকৃতি পায়। রোপা আউশের প্রথম জাত এটি। কান্ড শক্ত তাই হেলে পড়েনা। হেক্টর প্রতি ৪ টন পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে। জীবনকাল ১১৫ দিন।
ব্রি ধান ২৭আউশ মোসুমের ধান। ১৯৯২ সালে এ জাতের স্বীকৃতি হয়। ১১৫ দিন জীবনকাল। লম্বা ধান গাছের জাত এটী। বরিশাল ও পটুয়াখালী অঞ্চলের জোয়ার-ভাটা এলাকায় চাষের উপযোগী। হেক্টর প্রতি ৪ টন ফলন দিয়ে থাকে।
ব্রি ধান ২৮বোরো মৌসুমে চাষোপযোগী। ১৯৯৪ সালে স্বীকৃতি পায়। এটি একটি আগাম জাতের ধান। বন্যা প্রবন এলাকার জন্য উপযোগী। ১৪০ দিন ব্যাপ্তিকাল। ৫.৫-৬ টন এর হেক্টরপ্রতি ফলন।
ব্রি ধান ২৯বোরো মৌসুমের ধান। এটি একটি উচ্চফলনশীল ধান। ১৯৯৪ সালে স্বীকৃতি পায়। ১৬০ দিন এর ব্যাপ্তিকাল। জীবনকাল ১৬০ দিন। [৮]
ব্রি ধান ৩০১৯৯৪ সালে এ জাতটির উদ্ভাবন হয়। আমন মৌসুমের ধান, এর আলোকসংবেদনশীলতা রয়েছে। এর ব্যাপ্তিকাল ১৪৫ দিন। হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৫ টন ।
ব্রি ধান ৩১আমন মৌসুমের ধান। সংকরায়নের মাধ্যমে ১৯৯৪ সালে এ জাতের উদ্ভাবন হয়। ১৪১ দিন ব্যাপ্তিকাল। হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৫ টন।
ব্রি ধান ৩২আমন মৌসুমের ধান। ১৯৯৪ সালে এ জাতের উদ্ভাবন হয়। হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৫ টন। জীবনকাল ১৩০ দিন।
ব্রি ধান ৩৩আমন মৌসুমের ধান। ১৯৯৭ সালে এ জাতের উদ্ভাবন হয়। হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৪.৫ টন। জীবনকাল ১১৮ দিন। মঙ্গা এলাকায় এ ধান বেশ জনপ্রিয়।
ব্রি ধান ৩৪আমন মৌসুমের সুগন্ধ পোলাও জাতের ধান। এ ধান দেখতে কালিজিরার মতোই ছোট। যশোর অঞ্চলের খাসকানি নামক স্থান থেকে বাছাইকরণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ১৯৯৭ সালে এ ধানের উদ্ভব ঘটে। জীবনকাল ১৩৫ দিন। ফলন হেক্টরপ্রতি ৩.৫ টন।
ব্রি ধান৩৫বোরো মৌসুমের ধান। ১৯৯৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৫ টন। ১৫৫ দিন এর ব্যাপ্তিকাল।
ব্রি ধান ৩৬১৯৯৮ সালে ইরি থেকে এ জাতের প্রবর্তন। চারা অবস্থায় ঠান্ডা সহনশীল। ১৪০ থেকে ১৪৫ দিন পর্যন্ত এর ব্যাপ্তিকাল। ৫ থেকে ৫.৫ টন পর্যন্ত হেক্টরপ্রতি ফলন দিয়ে থাকে। যে সমস্ত এলাকায় তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস এর নিচে নেমে যায়। সে সকল এলাকায় উৎপাদন ভালো হয়।
ব্রি ধান৩৭আমন জাতের সুগন্ধি জাত। ১৯৯৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়। জীবনকাল ১৪০ দিন। হেক্টরপ্রতি ফলন ৩.৫ টন প্রায়।
ব্রি ধান৩৮আমন মৌসুমের ধান। ১৯৯৮ সালে এ জাতের উদ্ভাবন হয়। জীবনকাল ১৪০ দিন। হেক্টরপ্রতি ফলন ৩.৫ টন প্রায়।
ব্রি ধান৩৯১৯৯৯ সালে এ জাতের উদ্ভাবন হয়। আমন মৌসুমের ধান। ১২২ দিন এর ব্যাপ্তিকাল। হেক্টরপ্রতি ফলন ৪.৫ টন প্রায়। এটি স্বল্প জীবনকালের জাত।
ব্রি ধান৪০আমন মৌসুমে উপকূলের লবণাক্ত এলাকায় চাষের উপযোগী। ১৪৫দিন এর ব্যাপ্তিকাল। হেক্টরপ্রতি ফলন ৪.৫ টন প্রায়।
ব্রি ধান ৪১আমন মৌসুমে উপকূলের লবণাক্ত এলাকায় চাষের উপযোগী। নীচু জমিতে চাষোপযোগী। ১৪৮ দিন ব্যাপ্তিকাল। হেক্টরপ্রতি ৪ থেকে ৪.৫ টন পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে।
ব্রি ধান ৪২আউশ মৌসুমের ধান। সাধারণত খরা প্রবন এলাকায় চাষ করা হয়। ২০০৪ সালে চাষের অনুমোদন লাভ করে। ১০০ দিন এর ব্যাপ্তিকাল। ৩.৫ টন পর্যন্ত (হেক্টরপ্রতি) ফলন দিয়ে থাকে।
ব্রি ধান ৪৩খরা সহিষ্ণু ধান। ২০০৪ সালে স্বীকৃতিলাভ করে। ১০০ দিন এর ব্যাপ্তিকাল। ৩.৫ টন পর্যন্ত (হেক্টরপ্রতি) ফলন দিয়ে থাকে। আউশ মৌসুমের ধান।
ব্রি ধান ৪৪আমন জাতের ধান। অলবণাক্ত জোয়ার-ভাটা এলাকায় এ জাতের চাষ করা হয়। ২০০৫ সালে এ জাতের উদ্ভাবন। ১৪৫দিন এর ব্যাপ্তিকাল। হেক্টরপ্রতি ফলন ৬.৫ টন প্রায়।
ব্রি ধান৪৫বোরো মৌসুমের ধান। ২০০৫ সালে এ জাতের উদ্ভাবন। ১৪০ থেকে ১৪৫ দিন এর জীবনকাল। ৬ থেকে ৬.৫ টন হেক্টরপ্রতি ফলন দিয়ে থাকে।
ব্রি ধান৪৬আমন মৌসুমে চাষের উপযোগী। বন্যাপ্রবন জাত। জীবনকাল ১৫০ দিন, হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৫ টন।
ব্রি ধান৪৭বোরো মৌসুমে চাষ করা হয়। লবণাক্ত এলাকায় চাষ করা হয়ে থাকে। ২০০৬ সালে চাষের অনুমতি লাভ করে। জীবনকাল ১৫২ দিন। ৬ টন হেক্টরপ্রতি ফলন দিয়ে থাকে।
ব্রি ধান৪৮আউশ মৌসুমে চাষ করা হয়। ২০০৮ সালে চাষের জন্য স্বীকৃতি লাভ করে। জীবনকাল ১১০ দিন। হেক্টরপ্রতি ফলন প্রায় ৫ টন।
ব্রি ধান ৪৯আমন মৌসুমে চাষ করা হয়। খরা সহিষ্ণু জাত। ২০১১ সালে বীজ বোর্ডের অনুমোদন লাভ করে। পশ্চাৎ সংকরায়ন করে বংশানুক্রম সিলেকশানের মাধ্যমে এ জাতের উদ্ভব। ১০৫ থেকে ১১০ দিন এর ব্যাপ্তিকাল। সাড়ে চার থেকে পাঁচ টন পর্যন্ত ফলন (হেক্টরপ্রতি) দিয়ে থাকে।
ব্রি ধান ৫0 (বাংলামতি)বোরো মৌসুমের ধান। লম্বা চিকন, সাদা এবং সুগন্ধী। জীবনকাল ১৫৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৬ টন। ২০০৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫১আমন মৌসুমের ধান। মাঝারি চিকন, সাদা। জীবনকাল ১৪২-১৫৪ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৪.৫ টন। ২০১০ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫২আমন মৌসুমের ধান। খাটো মোটা। জীবনকাল ১৪৫-১৫৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৪.৫-৫ টন। ২০১০ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫৩আমন মৌসুমের ধান। মাঝারি চিকন। জীবনকাল ১২৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৪.৫ টন। ২০১০ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫৪আমন মৌসুমের ধান। মাঝারি চিকন। জীবনকাল ১৩৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৪.৫ টন। ২০১০ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫৫বোরো ও আউস মৌসুমের ধান। লম্বা চিকন। জীবনকাল ১৪৫ (বোরো) ও ১০৫ (আউস) দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৭ (বোরো) ও ৫ (আউস) টন। ২০১১ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫৬রোপা আমন মৌসুমের ধান। লম্বা মোটা। জীবনকাল ১১০ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৫ টন। ২০১১ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫৭রোপা আমন মৌসুমের ধান। লম্বা চিকন। জীবনকাল ১০৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৪.৫ টন। ২০১২ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি ধান ৫৮বোরো মৌসুমের ধান। মাঝারি চিকন, সাদা। জীবনকাল ১৫৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৭.৫ টন। ২০১২ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি হাইব্রিড ধান ১বোরো মৌসুমের ধান। মাঝারি চিকন, সাদা। জীবনকাল ১৫৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৮.৫ টন। ২০০১ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি হাইব্রিড ধান ২বোরো মৌসুমের ধান। মাঝারি মোটা। জীবনকাল ১৪৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৮ টন। ২০০৮ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি হাইব্রিড ধান ৩বোরো মৌসুমের ধান। মাঝারি মোটা। জীবনকাল ১৪৫ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৯ টন। ২০০৯ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
ব্রি হাইব্রিড ধান ৪আমন মৌসুমের ধান। মাঝারি চিকন, সাদা। জীবনকাল ১১৮ দিন। ধানের গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৬.৫ টন। ২০১০ সালে জাত হিসেবে স্বীকৃতি পায়।